প্রতিষ্ঠানের নাম: জামেয়া ইসলামিয়া ফরিদাবাদ সিলেট

প্রতিষ্ঠাকাল: ২০০৯ সালের ৭ই আগস্ট।
অবস্থান: ফরিদাবাদ আবাসিক এলাকা, এয়ারপোর্ট, সিলেট, বাংলাদেশ।
লক্ষ্য: জামেয়ার রয়েছে সুদূরপ্রসারী পরিকল্পনা। বাস্তবভিত্তিক গবেষণা ও সঠিক পাঠদানের মাধ্যমে এমন একদল যুগসচেতন হাফিয ও আলিম গড়ে তোলাই এর মূল লক্ষ্য; যারা চলমান শতাব্দির যেকোনো চ্যালেঞ্জে জাতিকে সঠিক নেতৃত্ব ও দিঙ্নির্দেশনা দিতে সক্ষম হবে। মানুষ পাবে তাদের কাছে যুগজিজ্ঞাসার সঠিক সমাধান।

বিভাগসমূহ:

হিফয বিভাগ: আন্তর্জাকিত সুর ও স্বরে, হুফফাজুল কুরাআন বাংলাদেশের নিয়মানুযায়ী হিফয বিভাগ পরিচালিত হয়ে আসছে। এ বিভাগে উদীয়মান ও উদ্যমী ১৩জন শিক্ষকের নিরলস প্রচেষ্টায় ২২০ জন শিক্ষার্থীর পড়াশোনা চলছে। আলহামদুলিল্লাহ, জামেয়া ইসলামিয়া ফরিদাবাদের পথ ধরে আজ বৃহত্তর সিলেটের হিফয-জগতে পরিবর্তন ও মানসম্মত লেখাপড়ার দ্বার উন্মোচিত হয়েছে।

মাদানি নেসাব: হিফয বিভাগের পাশাপাশি রয়েছে মাদানি নেসাব। প্রতি বছর এক এক জামাত খুলে বর্তমানে ৩য় বর্ষ পর্যন্ত খোলা হয়েছে। মাদানী নেসাবের পূর্বে এ’দাদিয়া বা ‘প্রস্তুতি ক্লাস’ নামে আরেকটি জামাত রয়েছে। সেখানে হিফয সমাপনকারী ও নতুন শিক্ষার্থীদেরকে মাত্র এক বছরে মাদানি নেসাবে ভর্তির যোগ্য করে তোলা হয়। এ বিভাগে উদ্যমী ১০ জন শিক্ষকের নিরলস প্রচেষ্টায় ৪০ জন শিক্ষার্থীর পড়াশোনা চলছে। পর্যায়ক্রমে ক্লাস বৃদ্ধি করা হবে।

ফলাফল:

ফলাফলের ক্ষেত্রে শুরু থেকেই আযাদ দ্বীনী এদারায়ে তালীম বাংলাদেশ, বেফাকুল মাদারিস, তানযীমুল মাদারিস ও রাবেতাতুল মাদারিসের কেন্দ্রীয় পরীক্ষায় ১ম ও ২য় স্থানসহ দু-একজন ছাড়া সবাই মমতায (মেধা তালিকা) বিভাগে পাস করে আসছে।
বিশেষ করে আযাদ দ্বীনী এদারায়ে তালীম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় পরীক্ষায় বিগত পাঁচ বছর থেকে ধারাবাহিকভাবে প্রথম স্থান অর্জন করে আসছে।
এ ছাড়া হুফফাযুল কুরআন ফাউন্ডেশনের ২০১৪’র জাতীয় হিফজুল কুরআন প্রতিযোগিতায় সারা বাংলাদেশে ২০ হাজার প্রতিযোগীর মাঝে ১ম স্থান লাভ করেছে।
ভর্তি: হিফয বিভাগে ভর্তিচ্ছুদেরকে ৩ রামাযানের ভেতর সাময়িকভাবে ভর্তি করা হয়। ২৫ রামাযান পর্যন্ত যাচাই-বাছাই করে যারা ভর্তির যোগ্য বলে বিবেচিত হয়, কেবল তাদেরকে রামাযানের পরে ভর্তির সুযোগ দেওয়া হয়।
মাদানি নেসাবে ১১ শাওয়াল ভর্তি করা হয়। এ বিভাগে হাফিযদেরকে অগ্রাধিকার দেওয়া হয়।
ফি: ভর্তি ফি: ৩৫০০/- মাসিক ফি ৩০০০/-
সকল বিভাগে ভর্তির ক্ষেত্রে গরিব ও মেধাবী ছাত্রদের বেলায় রয়েছে বিশেষ সুযোগ।
থাকা-খাওয়া: সম্পূর্ণ আবাসিক।
আয়ের উৎস: আয়ের উৎস সম্পূর্ণ ছাত্রদের মাসিক ফি। চাঁদার কালেকশনের কোনো ব্যবস্থা নেই। তবে কেউ যদি স্বেচ্ছায় কিছু দান করতে চান তাহলে তা যাচাই-বাচাই করে নেওয়া হয়।
ব্যয়: মাসিক ব্যয় প্রায় ৫ লক্ষ টাকা।

পরিচালক: হাফিয মাওলানা ফখরুযযামান জামেয়া ইসলামিয়া ফরিদাবাদ সিলেট

Web: http://faridabadjamia.com